আইসিডিডিআর,বি-এর ফিল্ড রিসার্চ ম্যানেজার ওয়াজেদ আলী বাংলাদেশের শহুরে ভাসমান জনগোষ্ঠীর মধ্যে শূন্য-ডোজ এবং কম টিকাদানের উচ্চ ঝুঁকির দিকে বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। এই বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপের জন্য ওয়াজেদ আলী শহুরে ভাসমান জনসংখ্যার শিশুদের মধ্যে টিকাদানের বিস্তার উন্নত করার জন্য বেশ কয়েকটি কৌশলের পরামর্শ দেন। 

“যখনই আমরা একটি জরিপ বা টিকাদান কর্মসূচি পরিচালনা করি, আমরা প্রায়শই স্বাস্থ্যকর্মীদের কাছ থেকে শুনি যে শহরের ভাসমান বা রাস্তার বাসিন্দাদের শিশুদের সনাক্ত করা এবং তাদের কাছে টিকা পৌঁছানো একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ”, ওয়াজেদ আলী বলেন৷ তিনি আরো জানান যে এসকল শিশুরা তাদের পিতামাতার সাথে শহরের চারপাশে ঘুরে বেড়ায়, জায়গা থেকে অন্য জায়গায় চলে যায়, কারণ তাদের কোন স্থায়ী আশ্রয় নেই।

তিনি আরো বলেন “রাস্তায়, বাস এবং ট্রেন টার্মিনালে এবং অন্যান্য উন্মুক্ত জায়গায় হাজার হাজার মানুষ বাস করে। তাদের জীবনধারণের মৌলিক সুযোগ-সুবিধা এবং নিরাপদ আশ্রয়ের অভাব রয়েছে, যা তাদেরকে বঞ্চিত ও অরক্ষিত করে তুলছে।” তাদের বেশিরভাগই জীবিকা নির্বাহের জন্য দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমের উপর নির্ভর করে এমন ধরণের কাজে নিযুক্ত থাকে। যেমনঃ লাগেজ বহন, ট্রাক আনলোড করা, রাস্তায় ফেরী করা এবং ঘরোয়া কাজ। তাদের অস্থিতিশীল জীবনযাত্রার কারণে তারা প্রায়শই স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সেবা পেতে অসমর্থ হয়। সাধারণভাবে, শহরাঞ্চলের রাস্তার বাসিন্দারা বস্তিবাসীদের চেয়ে বেশি দুর্বল এবং দরিদ্র। যেখানে বস্তির ৯৫ % শিশু পোলিও টিকা পেয়েছে, সেখানে রাস্তার শিশুদের ক্ষেত্রে পোলিও বা বিসিজি এবং পেন্টাভ্যালেন্টের মতো অন্য যেকোন রুটিন ভ্যাকসিনের জন্য টিকা দেওয়ার কোনো আনুষ্ঠানিক হিসাব নেই [১]।

রাস্তার বাসিন্দাদের সংখ্যা এবং তাদের জীবনযাত্রার অবস্থা সম্পর্কে খুব বেশি তথ্য পাওয়া যায় না। বাংলাদেশের বস্তি এলাকা এবং ভাসমান জনসংখ্যার উপর সাম্প্রতিকতম আদমশুমারি ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই আদমশুমারি অনুসারে, ভাসমান জনসংখ্যা ছিল প্রায় ১৬,৫০০ জন, যাদের বেশিরভাগই পুরুষ এবং প্রায় ৪,০০০ জন মহিলা এবং কিছু শিশু [1]। উল্লেখিত জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক ঢাকা শহরে বাস করত; প্রায় ১০০টি পাবলিক লোকেশনে মোট প্রায় ৭,০০০ জনকে পাওয়া গেছে। অধিকাংশ ভাসমান বা রাস্তার বাসিন্দাই নিরক্ষর, তাদের প্রতি ছয়জনের মধ্যে মাত্র একজন পড়তে এবং লিখতে সক্ষম। তাদের মধ্যে বিবাহের হার বেশি, পাঁচজনের মধ্যে চারজন বিবাহিত [২]।

শহুরে বাসনাম বা রাস্তার বাসিন্দারা স্বাস্থ্যসেবার মতো প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলি পেতে বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হন, কারণ তাদের থাকার জন্য একটি নির্দিষ্ট জায়গা নেই। ফলস্বরূপ, তারা টিকাদান, প্রসবপূর্ব যত্ন এবং জন্মের সময় দক্ষ স্বাস্থ্যকর্মীর উপস্থিতির মতো গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্য সূচকগুলিতে পিছিয়ে থাকে [3]। ওয়াজেদ আলী টিকাদানের পরিষেবাগুলি পাওয়ার ক্ষেত্রে সম্মুখীন হওয়া বাধাগুলির বিশদ বিবরণ দিতে গিয়ে অপমানিত হওয়ার ভয় ও টিকা প্রদানের সমস্যা, টিকা কার্ড হারানো, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ভয়, সময়ের অভাব এবং ভ্যাকসিন ও তাদের প্রভাব সম্পর্কে জ্ঞানের অভাবের কথা উল্লেখ করেন [3]। “সেই সাথে, ভাসমান জনসংখ্যার ক্ষণস্থায়ী অবস্থানের প্রবৃত্তি এবং অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনও স্বাস্থ্যকর্মীদের পক্ষে তাদের শিশুদের ট্র্যাক করা এবং টিকা দেওয়া কঠিন করে তোলে, বিশেষ করে যখন তারা অসুস্থ থাকে।”

এইসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য ওয়াজেদ আলী সকলকে এগিয়ে আসার বিভিন্ন উপায়ের পরামর্শ দিয়েছেন। প্রথমত, এসকল গোষ্ঠীর জন্য কাউন্সেলিং পরিষেবা জোরদার করা, বিশেষ করে বস্তিবাসীদের জন্য, এবং সেই সাথে নিশ্চিত করা যে মায়েরা টিকা দেওয়ার গুরুত্ব এবং টিকা দেওয়ার সময়সীমা বুঝতে পারে। দ্বিতীয়ত, অভিভাবকদের জন্য অপেক্ষার সময় সামঞ্জস্য ও কমিয়ে আনার কৌশল তৈরি করা এবং যাদের আর্থিক সংস্থান বেশি তাদের দ্বারা টিকা বঞ্চিতদের অবদমনের প্রবণতা রোধ করা। তৃতীয়ত, শহুরে দরিদ্রদের তাদের শিশুদের টিকার কার্ডগুলি আরও ভালভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করতে সহায়তা এবং অনুপ্রাণিত করার ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করা।

ওয়াজেদ আলী উল্লেখ করেছেন, নীতিনির্ধারকসহ শহুরে ভাসমান জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তির উন্নতির জন্য সকল স্তরের অংশীদারদের অবদান রাখতে হবে এবং সহযোগিতা করতে হবে। “নীতিনির্ধারকদের প্রতিটি হাসপাতালে জন্মের পরপরই বিসিজি টিকা দেওয়ার বিধান বাস্তবায়নের কথা বিবেচনা করা উচিত। এই ধরনের উদ্যোগ টিকাদান কর্মসূচিকে ব্যাপকভাবে বাড়িয়ে তুলবে এবং কার্যকরভাবে শূন্য-ডোজ এবং কম টিকাপ্রাপ্ত শিশুদের সংখ্যা হ্রাস করবে।” নীতিনির্ধারকরা পথ প্রশস্ত করতে পারেন, তবে তা সম্ভব হবে পরিষেবা প্রদানকারী এবং সকল সম্প্রদায়ের সম্মিলিত সমর্থনে। এক্ষেত্রে সব গোষ্ঠীকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। “আমরা শুধুমাত্র সম্মিলিতভাবে এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারি, এবং ভাসমান জনসংখ্যা যাতে নিয়মিত ভ্যাকসিন গ্রহণ করে তা নিশ্চিত করতে পারি।” 

তথ্যসূত্র:

  1. বস্তি এলাকা এবং ভাসমান জনসংখ্যার আদমশুমারি 2014 (মে 2015), বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো, পরিসংখ্যান বিভাগ, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, ISBN: 978-984-33-9608-2,[cited 2023 July 9] ; এখান থেকে উপলব্ধ: https://dataspace.princeton.edu/handle/88435/dsp01wm117r42q
  2. সংসদ সদস্যরা পার্থক্য করতে পারেন: ফুটপাথবাসীদের বেঁচে থাকার অধিকার (2013), চরম দারিদ্র্য ও শহুরে ফুটপাথের বাসিন্দাদের উপর সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপ (APPG), বাংলাদেশ সংসদ,[Internet] . 2016[cited 2023 July 9] ; থেকে পাওয়া যায়: https://admin.concern.net/sites/default/files/media/migrated/parliamentary_group_report_on_pavement_dwellers.pdf
  3. শহুরে রাস্তার বাসিন্দা, নীতি সিরিজের সংক্ষিপ্ত নং 4 (2011) এর প্রমাণ। আইসিডিডিআর, খ.[cited 2023 July 10] . এখান থেকে পাওয়া যাবে: http://rpcc.dghs.gov.bd/pdf/urban_street_dwellers_4may2011.pdf
Share:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.